অবৈধ সম্পর্কের জেরে আদিবাসী মহিলাকে চুল কেটে পোস্টে বেঁধে মার, গ্রেফতার পাঁচ

এবি ওয়েব ডেক্স :  মেয়ের শ্বশুরের সাথে অবৈধ সম্পর্কের জেরে এক আদিবাসী  মহিলাকে মারধর করে চুল কেটে দিল তার মেয়ের শ্বশুর বাড়ির লোকজনেরা। শুধু তাই নয় ওই মহিলাকে মারধর, শ্লীলতাহানি করে তাকে বিবস্ত্র করার চেষ্টাও করা হয়। ঘটনার জেরে পুলিশ পাঁচ জনকে গ্রেফতার করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে শক্তিগড়ের পুতুন্ডা গ্রামের বাসিন্দা ওই আদিবাসী  মহিলা তার মেয়ের শ্বশুরের সাথে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। পরে মেয়ের শ্বশুর বিমল কর্মকারের সাথে তিনি পালিয়ে যান। এর পর তাদের আর দেখা মেলেনি। গত কাল রবিবার দুপুরের  দিকে তিনি তার মেয়ের বাড়িতে ফিরে আসেন। সেই সময় ওই মহিলার স্বামীর উসকানিতে মেয়ের শ্বশুর বাড়ির লোকেরা তাকে প্রথমে পাড়ার লাইট পোস্টে বেঁধে মারধর করতে থাকে। এরপর তার চুল কেটে নেওয়া হয়। তার শীলতাহানির পাশাপাশি তাকে বিবস্ত্র করে পাড়ায় ঘোরানোর চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ।  পরে সেখান থেকে পালিয়ে গিয়ে শক্তিগড় ফাঁড়িতে তিনি অভিযোগ দায়ের করেন। পরে তাকে বর্ধমান থানায় নিয়ে আসা হয়। অভিযোগ  পত্রে ওই মহিলা অভিযোগ করেছেন তিনি রবিবার দুপুরের দিকে তার মেয়ের সাথে দেখা করার জন্য শক্তিগড়ে আসেন।  সেই সময় তার স্বামী জীবন হাঁসদা, প্রাণ মণি হাসদা, লক্ষ্মী কর্মকার, দুঃখী কর্মকার, ভোলা কর্মকার সহ আট দশ জন লাইট পোস্টে বেঁধে বেধড়ক মারধর করতে থাকে। তার পরণের শাড়ি ছিঁড়ে তাকে বিবস্ত্র করে ফেলার চেষ্টাও করা হয়। এরপর তার গায়ে গোবরের জল ঢেলে দেওয়া হয়। পরে তার চুল কেটে দেয় তারা। তার চিৎকার শুনে পাড়া প্রতিবেশিরা ছুটে এলে তারাই  তাকে উদ্ধার করে। তিনি দশ জনের নামে বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। এদিকে ওই আদিবাসী মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ পাঁচ জনকে গ্রেফতার করেছে।

বর্ধমানের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দ্যুতিমান ভট্টাচার্য বলেন, শক্তিগড়ে এক বিবাহিতা মহিলাকে মারধর করার অভিযোগ আসে। মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গেছে বছর দেড়েক আগে ওই মহিলা  তার মেয়ের শ্বশুরের সাথে পালিয়ে যায়।  তাই তিনি ফিরে আসতেই তাকে মারধর করে । এই ঘটনায় পাঁচ জনকে গ্রেফাতার করা হয়েছে।

Leave a Reply