অরণ্য ধ্বংস নয় রক্ষা করুণ বার্তা দিচ্ছে পাখি

অরণ্য ধ্বংস নয় সৃষ্টি করুন, তাই গাছ লাগান ও জীবকুলের প্রাণ বাঁচান।’ একটি পাখি তার ঠোঁটে করে এই বার্তাই নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে পুজো মণ্ডপে। সে সহযোগিতা চাইছে মনুষ্যকূলের। তার আরতি, উষ্ণায়ন থেকে পৃথিবীকে রক্ষা করুন। বর্ধমান শহরের গোলাহাট প্রগতি সঙ্ঘের আকাশে বাতাসে মানুষের মুখে মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে ক্লাবের এই থিম । ২৮ তম বর্ষে তাই পুজোর থিম বিশ্ব উষ্ণায়ন। প্রায় ২০ ফুট উঁচু ত্রিপলের সাহায্যে ক্লাবের মাঠিটিকে ঘিরে রাখা হয়েছে। ভেতরে চলছে শারদ উৎসবের কর্মযজ্ঞ। ক্লাব কর্মকর্তাদের অনুমতি ছাড়া ভেতরে প্রবেশ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। নিজের পরিচয় দিয়ে ভিতরে ঢুকে দেখলাম, সাত থেকে আট ফুটের এক একটি সারস, অস্ট্রেলিয়ান ম্যাকা সাদা পাখনা মেলে বাঁচার চেষ্টা করছে। কারণ উষ্ণায়নের প্রভাবে আগুনের হলকা তার দিকে ছুটে আসছে। এই ভাবে থিমকে উপস্থাপন করতে চলেছে এই ক্লাব।

burdwan-golahat-pujo-2

পুজো কমিটির সম্পাদক মনোজ কুমার দে বলেন, পৃথিবীতে যেভাবে উষ্ণায়ন বেড়ে চলেছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এই উষ্ণায়ন থেকে কীভাবে মানুষকে বুঝিয়ে কিছুটা হলেও পরিত্রাণ পাওয়া যায় এবার সেই চেষ্টাই চালাচ্ছি আমরা। চন্দননগরের আলো মধ্যে দিয়ে এই থিমকে তুলে ধরা হচ্ছে। তাই আমরা দর্শকের কাছে অনুরোধ জানাই, এই থিমটিকে উপভোগ করতে হলে মন্ডপে সন্ধ্যের পরেই প্রবেশ করবেন। থিমের সাথে সামঞ্জস্য রেখেই থাকছে প্রতিমা। প্রতিমা শিল্পী পান্ডব পাল। মন্ডপের থিম মেকার শিল্পী সাধন দেবনাথ। গত বছর আমরা ঘাস, মাশরুম ও প্রজাপতির দেশে থিম তুলে ধরেছিলাম। এবারের থিম মেকার সাধনবাবু বললেন, গোটা বিশ্বজুড়ে গাছ কাটার ফলে পক্ষীকূল বাসা ছাড়া হয়েছে। পাখিদের আশ্রয়স্থল গাছের কোটর ও গাছের বাসা আর নেই। গাছই নেই তো বাসা থাকবে কোথা থেকে ? তাই তারা দিশাহীন। আর এই গাছ কাটার ফলে উষ্ণায়নের প্রভাবে পাখিরা আজ ঘর ছাড়া। সেই পাখিদের নিয়েই উষ্ণায়নের থিমকে তুলে ধরা হয়েছে। মণ্ডপে সাদা রঙের সারস অস্ট্রেনিয়ান ম্যাকাও থাকছে বড় বড় পাঁচটি। এছাড়াও প্রায় দুই শতাধিক ছোটো ছোটো পাখি গোটা মন্ডপ জুড়ে উড়ে বেড়াবে। এখানে পক্ষীকুল মানুষের কাছে আবেদন রাখবে সবুজ বাঁচাও, গাছ লাগাও আর জীবকূলের প্রাণ বাঁচাও।

Leave a Reply