জঙ্গলমহল থেকে উদ্ধার ১০ কেজির নতুন ল্যান্ড মাইন , নতুন করে আতংক

জাহাঙ্গীর বাদশা, পশ্চিম মেদিনীপুর 

বৃহস্পতিবার মেদিনীপুর সদরের ধেড়ুয়া সংলগ্ন চাঁদাবিলা গ্রাম থেকে কিছুটা ভেতরে জঙ্গল লাগোয়া রাস্তার ধার থেক উদ্ধার হয় একটি ল্যান্ড মাইন ৷ এদিন সকালে ১৮৪ নং কেন্দ্রীয় বাহিনীর জাওয়ানরা রুটীন তল্লাশীতে বের হলে হঠাত্ই মেটাল ডিটেক্টরে ল্যান্ড মাইনটির ইঙ্গীত পান ৷ তারপর ২০৭ কোবরার বম্ব স্কোয়াডকে খবর দেন তারা ৷ বম্ব স্কোয়াডের লোক এসে পরীক্ষা করে দেখেন যে মাটির তলায় পোঁতা রয়েছে মাইনটি ৷ মাইনটিতে ১০ কেজি বিস্ফোরক ঠাঁসা ছিল ৷ একদম নতুন কন্টেইনারে করে রাখাছিল সেই বিস্ফোরক ৷ সক্রিয় সেই মাইনটিকে ফাটিয়ে নিস্ক্রিয় করেন তারা ৷ কিন্তু হঠাত্ করে এই রকমের শক্তিশালী ল্যান্ড মাইন ঐ এলাকায় কে বা কারা পুঁতে গেছে তা নিয়ে কিছু জানা যায়নি ৷ তবে মাইনটি একদমই নতুন বলে বাহিনী সূত্রে খবর ৷ তাহলে কি আবার ওরা দানা বাঁধছে জঙ্গলমহলে? চিন্তার ভাঁজ প্রশাসনিক মহলে ৷

পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার বিস্তীর্ণ জঙ্গলে বাম জামানায় তান্ডব শুরু করেছিল মাওবাদীরা ৷ দীর্ঘ বাম জামানায় একের পর এক বাম নেতা কর্মীদের খুন করেছিল মাওবাদীরা ৷ মাও নেতা কিষেণ জী-র নেতৃত্বে একচেটিয়া মাওবাদীরা ত্রাস চালিয়েছিল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় ৷ পীড়াকাটা, লালগড়, লক্ষণপুর, ভীমপুর, সিজুয়া, কলসীভাঙা, চাঁদাবিলা সহ পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার জঙ্গল লাগোয়া এলাকাগুলোতে সেই সময় বিরাজ করেছিল মাওবাদীদের ত্রাস ৷ প্রায় রোজই খবরের শিরোনামে আসতো মাওবাদীদের কার্যকলাপ ৷ আর বাম শাসনকে হঠাতে পরিবর্তনের সরকারকে প্রতিষ্ঠিত করতে মরিয়া হয়ে পড়েন তত্কালীন বিরোধী দলনেত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ জঙ্গলমহলকে শান্ত করার হাতিয়ার হিসেবে জঙ্গলমহলের মানুষকে পাশে চেয়েছিলেন তিনি ৷ এবং সেই মতন ২০১১ সালের নির্বাচনে ব্যাপক ভোট পেয়ে রাজ্যে ক্ষমতায় আসে পরিবর্তনের সরকার ৷ ২০১১ সালেরই ২৪ নভেম্বর ঝাড়গ্রাম সংলগ্ন বুড়িশোলের জঙ্গলে পুলিশ ও মাওবাদীদের গুলির লড়াইয়ে মারা যান মাওবাদীদের একনিষ্ঠ নেতা কিষেণ জী ৷ সেই সময় কিষেণ জীর সাথে সুচিত্রা মাহাত থাকলেও তিনি পালিয়ে যান বলেই শোনা গিয়েছিল ৷ পরে অবশ্য আত্মসমর্পন করেন মাও নেত্রী সুচিত্রা মাহাত ৷ এরপর মাওবাদীদের সমাজের মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনতে বিভিন্ন প্যাকেজ ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷  কিন্তু তাও মাঝে মধ্যেই জঙ্গলমহলের নানা প্রান্ত থেকে উদ্ধার হয়েছিল পুরোনো ল্যান্ড মাইন, বন্দুক এবং কার্তুজ ৷ মাঝে মধ্যে জঙ্গললাগোয়া গ্রামগুলোতে মাওবাদী নামাঙ্কিত পোস্টারও উদ্ধার হয় যেখানে তৃণমূলের বিভিন্ন নেতাদের হুমকী দেওয়া হয় ৷ বর্তমানে পশ্চিম মেদিনীপুরের জঙ্গলমহলে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জাওয়ানরা মোতায়েন রয়েছেন ৷ ৷

Leave a Reply