জেলাশাসকের উদ্যোগে রাজ্যে প্রথম ‘বুজু’র মাধ্যমে ইংরাজি শিখবে ছাত্রছাত্রীরা

এবি ওয়েব ডেক্স , কাঁকসা: আধুনিক সমাজের চোখে আজও ওরা ব্রাত্য, ওরা পিছিয়ে পড়া শ্রেনী! কিন্তু তারা যে কোনো বিষয়ে কোনো অংশে কম যায় না তা দেখিয়ে দিল আদিবাসী ছাত্রছাত্রীরা। আজ বুজু সফটওয়ারের মাধ্যমে ইংরাজি শিখে তারা তাক লাগিয়ে দিতে চায়।যা দেখে অভিভূত বর্ধমানের জেলাশাসক ডঃ সৌমিত্র মোহন। মূলত তারই উদ্যোগ্যে শুরু হয়েছেছে আদিবাসীদের জন্য এইভাবে ইংরাজি শিক্ষার আসর। যা রাজ্যের মধ্যে প্রথম।  একলব্য কাঁকসার বনকাঠির রঘুনাথপুরের  একটা ইংরাজি মাধ্যম স্কুলের নাম। মূলত আদিবাসী ছাত্রছাত্রীরাই এখানে পড়াশোনা করে। স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেনী থেকে দ্বাদশ শ্রেনী পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ৪৪০ জন। কিন্তু সপ্তম , অষ্টম, নবম ও একাদশ শ্রেণির ৩১৬ জন ছাত্রছাত্রী এই শিক্ষা নিচ্ছে। দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রছাত্রীরা তাদের ফাইনাল পরীক্ষার প্রস্তুতির কারণে এখানে অংশ নিচ্ছে না।  আনুষ্ঠানিক ভাবে বর্ধমানের জেলাশাসক এর উদবোধন করলেও ইংরাজি শিক্ষার কাজ শুরু হয়েছে দিন সাতেক আগে থেকেই। আর এই সাত দিনেই বুজুর মাধ্যমে ইংরাজি শিখে তাক লাগিয়ে দিয়েছে ছাত্রছাত্রীরা।

কীভাবে বুজু সফটওয়্যার ইংরাজি শেখাবে

মূলত অডিও ভিজ্যুয়াল সফটওয়্যারের মাধ্যমে কানে হেডফোন লাগিয়েই ইংরাজি শিখে ফেলবে ছাত্রছাত্রীরা। ম্যাগগ্রা হিল এডুকেশন নামে একটা বিদেশি সংস্থাকে এই শিক্ষার জন্য দায়িত্ব দেওয়া  হয়েছে। ছাত্রছাত্রী পিছু বছরে ১০০ ঘন্টা করে ব্যবহার করা যাবে ইন্টারনেট। ইংল্যান্ড, আমেরিকার ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে নেটের মাধ্যমে কথা বলে প্রাথমিকভাবে ইংরাজি শিখবে তারা। যদি দেখা যায় সুফল মিলতে শুরু করেছে তাহলে ইন্টারনেটের ব্যবহার দ্বিগুন করে দেওয়া হবে।

কত খরচ পড়বে এই কোর্সে

একলব্য মডেল রেসিন্ডেসিয়াল স্কুলের টিচার-ইন-চার্জ আজিজুল হক মিদ্যা বলেন , প্রতিটি ছাত্র পিছু রেজিস্ট্রেশন খরচ হবে ৩২০০ টাকা। যে খরচ  বহন করবে সরকার। জেলা প্রজেক্ট অফিসার স্বারদ্বতী চৌধুরি জানান, মূলত বর্ধমানের জেলাশাসক সৌমিত্র মোহন এই স্কুলে আদিবাসী ছাত্রছাত্রীদের ইংরাজি শিক্ষার জন্য এই উদ্যোগ নিয়েছিলেন। জেলাশাসক এর পরেই অনগ্রসর দফতরের প্রিন্সিপ্যাল সেক্রেটারির কাছে এই প্রস্তাব পাঠান। সেই প্রস্তাব পাশ হওয়ার পরেই শুরু হয় ‘বুজু’র মাধ্যমে ইংরাজি শিক্ষা। বর্ধমানের জেলাশাসক ডঃ সৌমিত্র মোহন জানান, একটা সফটওয়্যারের মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের ইংরাজি শেখানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। সম্পূর্ণ বিনামূল্যে তারা এই ইংরাজি শিখবে। যা তাদের ভবিষ্যৎ জীবনে কাজে লাগবে। রাজ্যের মধ্যে এই ধরণের প্রকল্প প্রথম বর্ধমান জেলাতেই শুরু করা হলো।

 

Leave a Reply