তমলুক, পাঁশকুড়া পূর্ব ও হলদিয়া বিধানসভা কেন্দ্রেও এবার উড়লো সবুজ আবির

এবি ওয়েব ডেক্স, তমলুক (পূর্ব মেদিনীপুর) : তমলুক লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে থাকা সাতটি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রে ২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটে জয় পেয়েছিল বাম ও কংগ্রেস জোট। এবার ওই তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রেই বিপুল ভোটের মার্জিনে জিতেছে শাসক দল। বিধানসভা ভোটে তমলুক বিধানসভা কেন্দ্রে সিপিআই প্রার্থী অশোক দিণ্ডা ৫২০ ভোটে জিতেছিলেন। এবার তৃণমূল তমলুকে ৪৮,৮৩২ ভোটের লিড পেয়েছে। পাঁশকুড়া পূর্ব অর্থাৎ কোলাঘাট বিধানসভা কেন্দ্রে সিপিএম প্রার্থী শেখ ইব্রাহীম আলি ৪,৭৬৭ ভোটে জিতলেও এবার তৃণমূল প্রার্থী দিব্যেন্দু অধিকারি ৩৮,৩৫৫ ভোটে জয়লাভ করেছেন। হলদিয়া বিধানসভা কেন্দ্রে সিপিএম প্রার্থী তাপসী মণ্ডল ২১,৪৯৩ ভোটে জিতেছিলেন। এবার তৃণমূল প্রার্থী এই বিধানসভা কেন্দ্রে ১ লক্ষ ৭৪৪ ভোটে জিতে সিপিএমকে অস্তিত্বের সংকটে ফেলে দিয়েছে। জমি আন্দোলনের আঁতুড় ঘর নন্দীগ্রাম শাসক দলকে সব থেকে বেশি ভোটের মার্জিনে জয় দিয়েছে। এখানে তৃণমূল প্রার্থী নিকটত্তম প্রার্থীর থেকে ১লক্ষ ৩৯ হাজার ৭৭১ ভোটে জয়লাভ করেছেন। উল্লেখযোগ্যভাবে নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রে এবার দ্বিতীয় স্থান দখল করেছে বিজেপি। এই বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী ২১,১৪৭ ভোট ও সিপিএম প্রার্থী ১৩,৬০৮ ভোট পেয়েছেন। ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটে বিজেপি তমলুক লোকসভা কেন্দ্রে মাত্র ৮৬,১৩৮ ভোট পেয়েছিল। ২০১৬ বিধানসভা ভোটে  তমলুক লোকসভা এলাকায় বিজেপি’র ভোট কমে ৭৯,৬৯৩ হয়ে যায়। এই উপনির্বাচনে বিজেপি ১ লক্ষ ৯৬ হাজার ৪৫০ ভোট পেয়েছে। অন্য‌঩দিকে বামেরা ২০১৪ লোকসভা ভোটে ৪,৬৯,৪৩০ ভোট পেলেও এবার তারা ২ লক্ষ ৮২ হাজার ৬৬ ভোট পেয়েছে। কংগ্রেস ২০১৪ সালে ২৬,৬৪২ ভোট পেলেও এবার ১৯,৮৫১ ভোট পেয়েছে।

এই বিষয়ে সিপিএমের জেলা সম্পাদক নিরঞ্জন সিহি বলেন,৫ মাস আগের বিধানসভা ভোটে ৯৩ হাজার ভোটে এগিয়ে থাকা তৃণমূল কোন যাদুতে প্রায় ৫ লাখ ভোটে জিতলো তা জেলাবাসী জানে। তৃণমূলের জেলা সভাপতি শিশির অধিকারি বলেন, বিপ্লবের মাটিতে তমলুক লোকসভার মানুষ ইতিহাস তৈরি করেছেন। বিরোধীদের অভিযোগের বিষয়ে বলেন, হেরে গেলে অনেকেই পাগলের প্রলাপ বকেন। ওদের এখন বিশ্রাম নেওয়া উচিত।

Leave a Reply