তৃণমূলের প্রচারে এসে সুব্রত বক্সি বোঝালেন ময়দানে তারাই শুধু আছেন       

আমার বাংলা ডেক্স , মন্তেশ্বর : এমনিতে মন্তেশ্বরে প্রচারে নেমে কাউকে টেক্কা দেওয়ার কিছু নেই বলে দাবি করছেন তৃণমূল নেতারা। বৃহস্পতিবার কিন্তু চিত্রটা ছিল অন্যরকম। বিকালে কুসুম গ্রামে সভা ছিল প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর্। ফলে একটা অদৃশ্য ল্প্রচারের লড়াই ছিলই। সেই লড়াইতে তৃণমূল কিন্তু হাসতে হাসতে গোল দিল কংগ্রেসকে। কংগ্রেসের সভায় যেখানে কার্যত ফাঁকা মাঠে বক্তব্য রাখতে হলো অধীর বাবুকে সেখানে সুব্রত বক্সির সভায় জায়গা দিতে পারলো না তৃণমূল। এদিন অবশ্য কংগ্রেস নয় বিজেপিকেই নিশানা করেন সুব্রত বাবু।  তিন তালাকের প্রসঙ্গ তুলে বিজেপিকে একহাত নিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সভাপতি । বৃহস্পতিবার বিকালে ও সন্ধের সময় পাহাড়হাটি ও মালডাঙ্গায় তৃণমূল প্রার্থী সৈকত পাঁজার সমর্থনে দুটি জনসভা করেন। এদিন প্রথম থেকেই তার গলায় ছিল বিজেপি বিরোধিতার সুর। বিজেপিকে সাম্প্রদায়িক বলে তুলোধনা করে  তিনি বলেন মানুষের মধ্যে বিভেদ করে ধ্বংসের রাজনীতি করছেন মানুষ তা ভালোভাবেই বঝে গেছেন। তাই গত দিল্লীর বিধানসভায় বিজেপিকে প্রথম তালাক দিয়েছে,বিহার বিধানসভায় দ্বিতীয় তালাক,আর উত্তরপ্রদেশের বিধানসভায় তৃতীয় তালাক দিয়ে বিদায় করে দেবে। এই রাজ্যে মানুষের সাথে মানুষের বিভেদ সৃষ্টি করে বিজেপি হাওয়া গরম করতে চাইছে।  অন্যদিকে বাম ও কংগ্রেসকে তুলোধনা করে বলেন এক অদ্ভূত চেহারা নিয়ে বাম কংগ্রেসের অদ্ভূত  মিলন হয়েছে। তৃণমূলের প্রার্থী সৈকত পাঁজার সমর্থনে বলেন আমাদের প্রার্থী সজল পাঁজাকে ভরসা করে সাধারণ মানুষ তাকে জিতিয়েছিলেন। এই উপনির্বাচন রাজ্যে সরকার গঠন না করলেও এই নির্বাচণের যথেষ্ট গুরুত্ব আছে। কারণ এই জয়ের উপর মন্তেশ্বরের সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন  জীবনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বপ্নের প্রকল্পগুলির বাস্তব রূপায়ন হবে। আগামীদিনে লোকসভা নির্বাচণে তৃণমূল দল ২৯২ আসনে জয়লাভ  করে কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসবে।এই জনসভায় প্রার্থী ও সুব্রতবাবু ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বর্ধমান  জেলা গ্রামীণ সভাপতি তথা রাজ্যের মন্ত্রী  স্বপন দেবনাথ,বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ চ্যাটার্জী,সুভাষ মন্ডল ও অন্যান্য নেতৃত্ব।

 

Leave a Reply