নোটের গেরোয় বর্ধমান বইমেলা, স্যোয়াইপ মেশিনেই চললো কেনাকাটা

রিন্টু ব্রহ্ম, বর্ধমান

নোটের গেরো এবার বর্ধমান বই মেলাতেও। ফলে অন্যান্য বছরের মতো এবার তাদের বাজার কিছুটা মন্দা। তবে মন্দা কাটাতে কিছু কিছু স্টলে দেখা গেল স্যোয়াইপ মেশিনেই   মাধ্যমেই চলছে কেনাকাটা। ফলে  এটিএম কার্ডের  মাধ্যমেই রমরমা বাজার এই বই বিক্রেতার। একদিকে যখন বর্ধমান সহ গোটা রাজ্যের উৎসব এর সংস্কৃতিতে  ভাটা পরেছে খুচরো নোটের অভাবে। অন্যান্য বছরের তুলনায় বিক্রির হার অনেক কমেছে সবলা মেলায়। তার প্রভাবই পড়েছে বর্ধমান বই মেলায়।যদিও মেলা কমিটি মেলা শুরু করার আগেই যার পুর্বাভাস পেয়েছিল।তাদের চিন্তাও ছিলো প্রথম দিন থেকেই। কিন্তু মেলা শেষ হতে চললেও সমস্ত বই বিক্রেতা দের কপালে ভাজ। লাভ তো দূরের কথা খরচ  তোলায় মুশকিল হয়েছে। কিন্তু অন্য দিকে এই ক্যাশ লেশ বাজার কেই কাজে লাগিয়ে রমরমা বই বিক্রি করে যাছে দু তিন জন বই বিক্রেতা। প্রায় ১০০ অধিক বই বিক্রেতা ও প্রকাশক সংস্থা এই মেলায় নিজেদের দোকান দিয়েছে। সমস্ত দোকান দার যখন মাছি তাড়াতে ব্যস্ত। ঠিক ওই সময় দু একটি দোকান সমস্ত রকম এটিএম, ডেবিট কার্ড গ্রহন করা হচ্ছে। যার ফলে ক্যাশলেশ লেনদেনে এটিএমের মাধ্যমেই বই এর টাকা মেটাচ্ছেন ক্রেতারা সোয়াইপ মেশিন ব্যবহার করে। থাকছে না কোনো গোলাপি নোটের ঝঞ্ঝাটও। যার ফলে অন্যন্য বই বিক্রেতাকে ছাড়িয়ে ২ থেকে ৩ গুন বেশি অংকের বই বিক্রি করছেন।  দোকান দার প্রিয়ব্রত রায় জানান তাদের গড়ে প্রায় ৫০ হাজার বই বিক্রি হচ্ছে। যেখানে অন্য একটি দোকানের পরিচালক চন্দন সাহা জানান তাদের বই বিক্রির সংখ্যা খুবই কম হচ্ছে। এবারের ব্যবসা টা তাদের লোকসানেই করতে হলো।

 

Leave a Reply