বর্ধমান রেল স্টেশন থেকে উদ্ধার বাতিল হওয়া ৪১ লক্ষ ৩৪ হাজার টাকা, আটক এক

পিন্টু প্যাটেল, বর্ধমান : বর্ধমান রেল স্টেশনে তল্লাশি চালিয়ে ৪১ লক্ষ ৩৪ হাজার টাকার বাতিল লোট উদ্ধার  করলো বর্ধমান রেলপুলিশ। ঘটনায় এক ব্যাক্তিকে আটক করা হয়েছে। রেলপুলিশ সূত্রে জানা গেছে বুধবার সন্ধে নাগাদ ২২৩৮৮ ডাউন ব্ল্যাক ডায়মন্ড এক্সপ্রেস এসে দাঁড়ায় বর্ধমান স্টেশনের ৫ নং প্ল্যাটফর্মে। রেলপুলিশের কাছে আগে থেকেই খবর ছিল কালো শার্ট,নীল রঙের জিন্সের প্যান্ট, খয়েরি জুতো পরে এক ব্যাক্তি পিঠে কালো ব্যাগ নিয়ে কালো টাকা পাচার করার চেষ্টা করছে। আর পি এফের ইন্সপেক্টর বীরেন্দ্র সাউ জানান, তারা গোপন সূত্রে খবর পাওয়ার পরেই তারা রেল পুলিশের তিনজন এ এস আই ও তিনজন কনস্টেবলকে ব্ল্যাক ডায়মন্ড এক্সপ্রেস তল্লাশিতে পাঠিয়ে দেন। ডাউন ব্ল্যাকডায়মন্ড এক্সপ্রেস ৫ নং প্ল্যাটফর্মে থামার সাথে সাথে শুরু হয় তল্লাশি। ইঞ্জিনের দিক থেকে ৬ নং জেনারেল বগিতে ওই ব্যাক্তির সন্ধান মেলে। তাকে ধরে জেরা করতেই সিদ্ধার্থ সামন্ত নামে ওই ব্যাক্তি অসলগ্ন কথাবার্তা বলতে শুরু করেন। পুলিশ জানতে পেরেছে সিদ্ধার্থ সামন্তের বাড়ি বর্ধমানের মাধবডিহি থানার ভুড়কুন্ডা গ্রামে। পুলিশ তাকে আটক করে তার ব্যাগ তল্লাশি করার পরে ৪১ লক্ষ ৩৪ হাজার টাকা উদ্ধার করে। এরমধ্যে বেশ কিছু  দু হাজার টাকার নোট ছিল। বাকি সব নোট ছিল বাতিল হওয়া এক হাজার ও পাঁচশো টাকার নোট।  পুলিশের জেরায় সিদ্ধার্থ জানায় তিনি বলরাজ দেবরালিয়া নামে এক চাল ব্যাবসায়ীর কাছে কাজ করেন।  বলরাজের বাড়ি ঝাড়খণ্ডের ধানবাদে। বর্ধমানের বাদামলতায় তার একটা চালের আড়ত আছে। তিনি মূলত ধানবাদ, ঝরিয়া সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে চাল ব্যাবসায়ীদের কাছ থেকে চালের টাকা সংগ্রহ করে নিয়ে ফিরছিলেন। এই জন্য তাকে মাসে ১০ হাজার টাকা বেতন দেয় চালের আড়তের মালিক। কিন্তু ওই টাকা সংগ্রহ করার কোনো রসিদ বা কাগজপত্র তিনি পুলিশের কাছে দেখাতে পারেননি। তাকে বর্ধমানের জি আর পির হাতে তুলে দেয় রেলপুলিশ। পুলিশ ধৃতকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

Leave a Reply