বোরো চাষে আদৌ জল মিলবে কি না তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় চাষিরা  

মহুয়া ঘোষাল গলসি:  গত বছর মেলে নি জল । এবার কি মিলবে বোরো চাষে জল এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে ব্যস্ত গলসির চাষিরা । শাসকদলের নেতারা বলছেন জল দেবে ডিভিসি । কিন্তু কবে দেবে ? কতটা দেবে তার উত্তর কৃষকেরা পাচ্ছে না শাসক দলের নেতাদের কাছ হতে । গলসির বিধায়ক বলছেন বোরো  চাষের জল দেওয়া হবে কিন্তু বিধায়কের কাছে চাষির প্রশ্নের উত্তর জল কবে দেবে এবং কতটা দেবে তার উত্তর নেই । সেচ অধিকর্তা বলেন জল দেওয়া হবে । কিন্তু কবে এবং কতটা জল ? সেচ অধিকর্তার সাফ জবাব জেলা প্রশাসন থেকে কোন নির্দেশ এখনো আসে নি । রাজ্যের সেরা ধান উৎপাদক ব্লক গলসির কৃষকেরা আদৌ ভরসা রাখতে পারছে না ডিভীসির জলের উপর । আদৌ দেবে কিনা সেই সন্দেহও তাদের মনে বাসা বাঁধতে শুরু করেছে ।

গলসির কৃষকদের সামনে দু দুটি সমস্যা এসে দাঁড়িয়েছে । আমন ধান কেটে ঘরে তোলা এবং বিক্রি করা । বোরো চাষের প্রস্তুতি নেওয়া । প্রধানমন্ত্রীর নোট বাতিলের ধাক্কায় গলসির চাষিরা প্রায় কুপোকাত । রাত জেগে ব্যাংকে লাইন দিয়ে কিছুটাকা এনেছিলেন তারা । কিন্তু সেসব প্রায় শেষের পথে । কারো কারো শেষ । সরকার কবে ধান কিনবে কিভাবে কিনবে তার দিনক্ষণ ঘোষণা হয় নি এখনো । গলসির কৃষকদের অভিযোগ এ মওকা বুঝে মাঠে নেমে পড়েছে চালকল মালিকদের এজেন্ট এবং স্থানীয় ধান ব্যাবসায়িরা । সেখ নিজামুদ্দিন বলেন ধান কাটার টাকা নেই চাষিদের হাতে এটা বুঝে ধান কারবারি আর চালকল মালিকদের এজেন্টরা টাকা নিয়ে মাঠেই ধান কিনে নিচ্ছেন । চাষি সরকারি দর থেকে কম দামে ধান বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছে বলে অভিযোগ তোলেণ  স্বপন মন্ডল নামে এক কৃষক । প্রধানমন্ত্রীর নোট বাতিলের জেরে গলসির কৃষকদের অবস্থা সবচেয়ে শোচনীয় বলে অভিযোগ তুলছেন স্থানীয় কৃষকেরা । এই সময়ে গোদের উপর বিষ ফোঁড়া বোর চাষে জল পাওয়া যাবে কিনা ।

স্থানীয় কৃষক হরিচরন শ্যাম বলেন হাতে সময় খুব কম চাষিদের । বীজ তলা তৈরি থেকে অনেক রকমের প্রস্তুতি নিতে হয় কৃষকদের । সেচ দপ্তর এখনো জানাচ্ছে না আদৌ গলসির চাষিরা বোর চাষের জল পাবে কিনা বলে অভিযোগ তোলেন প্রবীণ কৃষক হরিচরণ শ্যাম ।

আর এক কৃষক মোবারক হোসেন বলেন সেচ দপ্তর যদি জল না দেয় তবে কৃষকদের বোর চাষে খরচ বেড়ে যায় । গত বছর গলসি জল পায় নি বলে অভিযোগ এই কৃষকের । এবছর জল না পেলে গলসির চাষিদের বোর চাষে নামা মানে ক্ষতির পরিমাণ বৃদ্ধি করা বলে অভিযোগ মোবারক হোসেনের ।

গলসি ১নং ব্লক এবং ২নং ব্লকের তৃণমূল ব্লক নেতারা দাবী করছেন বোরো চাষের জল মিলবে এবার । শৈলেন হালদার নবকুমার হাজরা জাকির হোসেন বলেন এবার গলসি ডিভিসির জল পাবে । কিন্তু কবে থেকে দেওয়া শুরু হবে তা বলতে পারেন নি এই ব্লক নেতারা ।

গলসির বিধায়ক অলোক মাঝি বলেন এবার ডিভিসির পর্যাপ্ত জল আছে । গলসির চাষিরা বোরো চাষের জল পাবে বলে জানান বিধায়ক । তবে তিনিও জানাতে পারেন নি কবে দেওয়া হবে এবং কোন কোন অঞ্চল কতটা জল পাবে ।

সেচ দপ্তরের এ ডি  ও পার্থ ঘোষ বলেন জল দেওয়া হবে । কবে দেওয়া হবে সেই প্রশ্নের উত্তরে সেচ দপ্তরের এই অধিকর্তা বলেন জেলা প্রশাসন থেকে এখনো কোন নির্দেশ আসে নি ।

Leave a Reply