মল্লারপুরে বিজেপির মিছিলে পুলিশের বাধা টপকে হাঁটলেন লকেট

এবি ওয়েব ডেক্স,মল্লারপুর, বীরভূম

বিজেপি কর্মীদের চাপে মল্লারপুরে ভাঙল পুলিশের দড়ির ব্যারিকেট। পুলিশের বাধা অতিক্রম করেই মল্লারপুরে শান্তি মিছিলে হাঁটলেন বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়। সঙ্গে সহস্রাধিক কর্মী সমর্থক। পুলিশের পক্ষ থেকে বিজেপি নেতৃত্বের  বিরুদ্ধে এফ আই আর করা হবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

21-rampurhat-05-mayreswar-er-mallarpur-e-locket-er-santi-michile-badha-police-er

নবী দিবসের শোভাযাত্রা বের করা নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে ওঠা বীরভূমের ময়ূরেশ্বর থানার মল্লারপুর। দফায় দফায় দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে পুলিশ সহ চার জন জখম হন। এলাকায় শান্তি ফেরাতে দিন দুয়েক আগে তৃণমূলের পক্ষ থেকে এলাকায় শান্তি মিছিল বের করা হয়। সেদিন ১৪৪ ধারা থাকা সত্তেও পুলিশ নজিরবিহীন নিরাপত্তা দিয়ে মিছিল শহর পরিক্রমা করতে দেয়। এমনকি মিছিলের সময় যানজট এড়াতে তিন ঘণ্টা ৬০ নম্বর জাতীয় সড়ক দিয়ে যান চলাচল বন্ধ রাখে। মঙ্গলবার বিজেপির মিছিলে পুলিশের অন্যরূপ দেখল মল্লারপুরের মানুষ। এদিন বিজেপির শান্তি মিছিলে যাতে বাইরে থেকে লোকজন ঢুকতে না পারে তার জন্য মল্লারপুরে ঢোকার বিভিন্ন রাস্তায় পুলিশ গাড়ি চেকিং শুরু করে। বিজেপি কর্মী সমর্থক দেখলেই তাঁর গাড়ি আটকে দিয়েছে।

21-rampurhat-01-mayreswar-er-mallarpur-e-santi-michil-e-locket-chatterjee-0-ananyano-netara

দুপুর দুটো নাগাদ মল্লারপুরে এসে পৌঁছান লকেট চট্টোপাধ্যায়, বৈষ্ণবঘাটার বিধায়ক, স্বায়ন্তন বসু, দলের বীরভূম জেলা অবজারভার নির্মল মাজি। প্রথমেই বিজেপি নেতৃত্বকে রামপুরহাট মহকুমা পুলিশ আধিকারিক কমল বৈরাগ্য জানিয়ে দেন, আপনাদের অনুমতি নেওয়া নেই। আপনাদের মিছিল করতে দেওয়া যাবে না। পুলিশের সেই নির্দেশ উপেক্ষা করে বাহিনা মোড় থেকেই মল্লারপুর ব্যাঙ্ক রোড হয়ে মিছিল শুরু করে বিজেপি। দড়ি দিয়ে সেই বাহিনা মোড়েই বিজেপির মিছিল আটকে দেয় পুলিশ। রামপুরহাট মহকুমা পুলিশ আধিকারিক কমল বৈরাগ্যের নেতিত্বে পুলিশ ব্যারিকেট করলেও বিজেপির কর্মী সমর্থকদের চাপে পুলিশ পিছু হটে। এরপর মিছিল মল্লারপুর বাজারের দিকে হাঁটতে শুরু করে। বাজারে বজরং ক্লাবের কাছে গিয়ে বক্তব্য রাখেন। বলেন, “আপনারা শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখুন। কোন প্ররোচনায়  পা দেবেন না। আইনের মাধ্যমে দুষ্কৃতিদের সন্ত্রাসের মকাবিলা করুন। তবে মনে করলে আমরা এক ঘণ্টার মধ্যে সন্ত্রাস বন্ধ করে দিতে পারি। বিষয়টি আমরা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে জানাব”। রাজ্য সম্পাদক স্বায়ন্তন বসু বলেন, “আমরা বুধবার মল্লারপুরের বিষয়টি কেন্দ্রীয়  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানাব। সাত দিনের মধ্যে একটি কেন্দ্রীয় দল মল্লারপুরে এসে গোটা ঘটনা সরজমিনে তদন্ত করে যাবেন। তারপরেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন”। নির্মল মাজি বলেন, “তৃণমূলের মিছিলের দিন ১৪৪ ধারা জারি থাকা সত্তেও পুলিশ নজিরবিহীন নিরাপত্তা দিয়ে তাদের মিছিল করতে দেয়। কিন্তু আমাদের বেলা পুলিশের অন্য রূপ। ওরা তো দলীয় পতাকা নিয়ে মিছিল করেছিল। এনেছিল বাইরের লোক। আমাদের মিছিল ছিল মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত। তাই পুলিশ জোর করে আমাদের মিছিল আটকাতে পারেনি। পুলিশ এখন শাসক দলের তলপিবাহকের কাজ করেছে”। কমল বৈরাগ্য বলেন, “জোর করে ব্যারিকেড ভেঙ্গে মিছিল করায় বিজেপি নেতৃত্বের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে”।

Leave a Reply