মিষ্টি হাবে কর্মসংস্থান হবে স্থানীয়দের জানালেন সভাধিপতি

জমি জট কাটিয়ে বর্ধমানে শুরু হয়েছে মিষ্টি হাব তৈরির কাজ। আজ সোমবার সেইমিষ্টি হাব তৈরির কাজের তদারকি করতে সোমবার বামচাঁদাইপুরে গেলেন সভাধিপতি দেবু টুডু। সেখানে গিয়ে জেলা পরিষদের ইঞ্জিনিয়ার ও কর্মীদের সঙ্গে কাজের অগ্রগতি নিয়ে কথা বললেন তিনি। পাশাপাশি  সভাধিপতি এলাকার আদিবাসীদের  সঙ্গে বসে ফের এক দফা আলোচনাও করেন। এদিন সভাধিপতি সেখানে  কাজ চলার পাশাপাশি আদিবাসীদের জাহের স্থানের কাজ-সহ প্রতিশ্রুতি মতো তাঁদের উন্নয়নের কাজও শুরু হয়ে যাবে বলে আশ্বাস দেন তিনি।সভাধিপতি জানান  ইতিমধ্যেই  এই মিষ্টি হাব তৈরির জন্য রাজ্য সরকার ১ কোটি ৮০ লক্ষ টাকা দিয়ে দিয়েছে। এই টাকা দিয়ে বিল্ডিংয়ের কাজ হবে। প্রয়োজনে আরও টাকা দেবে সরকার। দ্রুত যাতে সমগ্র কাজ শেষ হয় সেই জন্য যুদ্ধকালীন ভিত্তিতে কাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য ইঞ্জিনিয়ারকে নির্দেশ দেন সভাধিপতি।

বর্ধমানে মাটি তীর্থ উতসবের সূচনা করতে এসে  রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বপ্নের প্রকল্প এই ‘মিষ্টি হাব’ তৈরির কথা ঘোষণা করেন ।যদিও এর আগে  বর্ধমানে তিনি একাধিকবার এসে সীতাভোগ, মিহিদানা ও ল্যাংচার শহরে মিষ্টি হাব তৈরি করার কথা ঘোষণা করেছিলেন। বলেছিলেন, গড়ে ওঠা মিষ্টি হাবে জয়নগরের মোয়া থেকে শুরু করে রাজ্যের বিখ্যাত সব মিষ্টি তৈরি হবে। এক ছাদের নীচে সবাই বাংলার বিখ্যাত সব মিষ্টির স্বাদ নিতে পারবেন। মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণার পরেই জেলা প্রশাসন তৎপরতার সাথে সরকারি জমি খুঁজতে শুরু করেন। বিপনণও যাতে ভালো হয় সেই জন্য দুর্গাপুর এক্সপ্রেসওয়ে সংলগ্ন জমিকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। একের পর এক জমি দেখার পরে শেষ পর্যন্ত বামচাঁদাইপুরে সত্তোরমাইল মোড়ে আধ একর জমিতে মিষ্টি হাব গড়ে তোলার কাজ শুরু হয়। অন্যদিকে, আলিশায় প্রস্তাবিত বি ডি এ-র জমির ৮৪ জন জমিদাতা জমি ফেরতের জন্য আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সিঙ্গুরে অনুষ্ঠিত বিজয় উৎসবে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে যাবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সভাধিপতি জানান আশা করা যায় মাস ছয়েকের মধ্যে তারা এই কাজ শেষ করতে পারবেন।

Leave a Reply