যৌনপল্লিতে অত্যাচার করে ক্লোজ হওয়া পুলিশ অফিসার  দাঁড়িয়ে  হ্যাটট্রিকের মুখে !           

আমার বাংলা ডেক্স ঃ  হ্যাটট্রিকের মুখে দাঁড়িয়ে আই সি হেমন্ত দত্ত! ফের যৌনপল্লিতে গিয়ে মহিলাদের হেনস্থা ও মারধর করার অভিযোগে কুলটি থানার নিয়ামতপুর ফাঁড়ির আই সি হেমন্ত দত্তকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করলো পুলিশ কমিশনারেট। আর আগেও তাকে দুর্গাপুরের ওয়ারিয়া ফাঁড়িতে থাকাকালীন  একই ঘটনার কারণে যৌন কর্মীরা তার গলায় জুতোর মালা পরিয়ে দেয়। পরে অভিযোগ জমা পড়ায়  পুলিশ লাইনে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল পুলিশ কমিশনার । ফের একই ঘটনা ঘটায় স্বভাবতই অস্বস্তিতে পড়েছে পুলিশের উপর মহল।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিয়ামতপুর ফাঁড়ির আই সি হেমন্ত দত্ত বেশ কিছুদিন ধরেই কুলটির নিয়ামতপুরের নিষিদ্ধ পল্লিতে রাতের বেলা মদ খেয়ে গিয়ে মহিলাদের কুলটি থানার নিয়ামতপুর ফাঁড়ির আই সি হেমন্ত দত্তকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করলো পুলিশ কমিশনারেট। আর আগেও তাকে দুর্গাপুরের ওয়ারিয়া ফাঁড়ি থেকে একই ঘটনার কারণে পুলিশ লাইনে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল। ফের একই ঘটনা ঘটায় স্বভাবতই অস্বস্তিতে পড়েছে পুলিশের উপর মহল।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিয়ামতপুর ফাঁড়ির আই সি হেমন্ত দত্ত বেশ কিছুদিন ধরেই কুলটির নিয়ামতপুরের নিষিদ্ধ পল্লিতে রাতের বেলা মদ খেয়ে গিয়ে মহিলাদের মারধর করতো।। গত মঙ্গলবার রাতের দিকে হেমন্ত দত্ত গাড়ি চুরির অভিযোগে যৌনপল্লিতে তল্লাশি করতে যায় । সেই সময় তিনি মহিলাদের মারধর করেন বলে অভিযোগ। এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে যৌনপল্লির মহিলারা বুধবার  সীতারামপুর জিটি রোড এলাকায় রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায়। আর আগেও ওই অফিসারের বিরুদ্ধে মদ্যপ অবস্থায় যৌন পল্লিতে ঢুকে মহিলাদের উপর অত্যাচার করার অভিযোগ ছিল। সেই সময় মহিলারা নিয়ামতপুর ফাঁড়ি ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন। সেই সময় ক্ষমা চেয়ে ঝামেলা মিটিয়েছিলেন ওই আই সি হেমন্ত দত্ত। এরপর ফের গত মঙ্গলবার গাড়ি চুরি হয়েছে এই অভিযোগ তুলে নিয়ামতপুরের যৌনপ্ললিতে তল্লাশি করতে গিয়ে মদ্যপ অবস্থায় মহিলাদের মারধর করেন। সেই সময় সাবিত্রী মিদ্দা, রঞ্জিত বিদ ও বিজয় রুইদাস বাধা দিতে গেলে তাদের বেধড়ক মারধর করেন তিনি। এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে বুধবার নিয়ামতপুর ফাঁড়িতে অভিযোগ দায়ের করতে গেলে অভিযোগ নেওয়া হয়নি। প্রতিবাদে তারা রাস্তা অবরোধ করে। এদিকে  এই খবর পুলিশ কমিশনারের কাছে পৌঁছানোর পরেই বুধবার রাতে হেমন্ত দত্তকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। হেমন্ত দত্তের জায়গায় রাহুল দেব মন্ডলকে নিয়ামতপুর ফাঁড়ির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত এর আগেও হেমন্ত দত্তের বিরুদ্ধে যৌনপল্লিতে ঢুকে মহিলাদের সাথে অশালীন ব্যবহার করার অভিযোগ ওঠায় তাকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। দুর্গাপুরের ওয়ারিয়া ফাঁড়ির আই সি থাকাকালীন কাদারোডের যৌনপল্লিতে রাতের বেলায় মদ্যপ অবস্থায়  গিয়ে  মহিলাদের টানাটানি করার অভিযোগে ফাঁড়ি ঘেরাও করেছিল যৌনপল্লির বাসিন্দারা। তারা সেই সময় হেমন্ত দত্তকে ঘিরে ধরে তার গলায় জুতোর মালাও পরিয়ে দিয়েছিলেন। তারপরেই তাকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

Leave a Reply