রাজবাড়ি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন সরে গেল সুবর্ণ জয়ন্তী ভবনে

দীর্ঘ ৫৬ বছর পরে  রাজবাড়ি ক্যাম্পাস থেকে নতুন সুবর্ন জয়ন্তী ভবনে সরে গেল বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যালয়। বৃহস্পতিবার বারবেলায় এই  প্রশাসনিক কার্যালয় ‘সুবর্ণ জয়ন্তী ভবন’এর উদবোধন করলেন এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য তথা রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠি। এদিন  প্রশাসনিক ভবনের প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্যে দিয়ে শুভ সূচনা করলেন আচার্য।  নতুন ভবনের পাশাপাশি বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন  ওয়েবসাইট এবং ফোটো অ্যালবামেরও সূচনা করেন তিনি। বর্ধমান মেডিকেল কলেজের পাশে  নার্স কোয়ার্টার সংলগ্ন এই প্রশাসনিক ভবনের অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বর্ধমানের বিধায়ক রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়, উপাচার্য স্মৃতিকুমার সরকার, সহ উপাচার্য ড ষোড়শী মোহন দাঁ, রেজিস্টার ড দেব কুমার পাঁজা প্রমুখ।

গোন্ডেন জুবিলি ভবনের দ্বারোদ্ঘাটন করে আচার্য কেশরীনাথ ত্রিপাঠী বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনা সম্পর্কে ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন রাজ্যের মধ্যে দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিশ্ববিদ্যালয় এই বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়। এই বিশ্ববিদ্যালয় রাজবাটি, গোলাপবাগ, তারাবাগ নিয়ে বিশাল এলাকা জুড়ে প্রসারিত। গাছগাছালি ঘেরা এই বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনার  ক্যাম্পাস অত্যন্ত মনোরম। এরই মাঝে গোল্ডেন জুবিলি ভবনের উদবোধন করে আজ আমি খুবই আনন্দিত। নতুন এই প্রশাসনিক ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে রাজ্য সরকারেরও প্রশংসা করে বলেন এই অত্যাধুনিক ভবনটি নির্মাণের পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উচ্চ শিক্ষা দফতর ৩২ কোটি ১৫ লক্ষ টাকা অনুমোদন দেওয়ায় আমি তাদের ধন্যবাদ জানাই। পাশাপাশি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এখানকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে উন্নত স্তরে নিয়ে গিয়ে রাজ্যের একটা অন্যতম বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করেছেন বলে তিনি তার প্রশংসা করেন।

Leave a Reply