রেজাউলকে পরিকল্পনা করে খুন করা হয়েছে দাবি এপিডি আর-এর

রিন্টু ব্রহ্ম, বর্ধমান    

বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের ছাত্র রেজাউলকে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে আজ বর্ধমান থানার আই সি ও পুলিশ সুপারের কাছে এই অভিযোগ করলো এপিডি আর। তাদের অভিযোগ , গত ২ ডিসেম্বর রাত সাড়ে আটটা নাগাদ রেজাউলের মোবাইলে একটা কল আসে। সেই কল পেয়ে রেজাউল বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। যাওয়ার আগে বলে যায় রাতে বাড়ি ফিরে খাওয়া দাওয়া করবে। কিন্তু সেই রাতে আর সে বাড়ি ফেরেনি। পরের দিন সকালে তার আত্মীয় শেখ আলাউদ্দিন খবর পায় বাড়ি থেকে প্রায় ১০ কিমি দূরে সরাইটিকর একটা করব খানার গেটে মাফলারের ফাঁসে তার ঝুলন্ত দেহ। রেজাউলের একটা হাত গেটের ভিতরে আটকানো ছিল। তারা আশেপাশের মানুষজন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য ছাত্রছাত্রীদের সাথে কথা বলে তথ্য সংগ্রহ করে তাদের মনে হয়েছে পরিকল্পিত ভাবে রেজাউলকে খুন করা হয়েছে। এদিন তারা পুলিশ সুপারের কাছে  অবিলম্বে ঘটনার তদন্ত করে দোষীদের সনাক্ত করা ও দোষীদের শাস্তির দাবি করে তারা। এপিডি আর এর সহ সভাপতি আলতাফ আহমেদ বলেন রেজাউলকে পরিকল্পনা করে খুন করা হয়েছে। তাদের মনে হয় সে যেহেতু সিভিক পুলিশে কাজ করতো তাই সে এমন কোনো বিষয় জেনে গিয়েছিল যার জন্য তাকে খুন হতে হলো।

প্রসঙ্গত   গত ৩ ডিসেম্বর বর্ধমানের সড়াই টিকর এলাকায় শেখ রেজাউল নামে এক ছাত্রের দেহ উদ্ধার হয়। সড়াইটিকর এলাকায় একটি কবর খানার কাছে গলায় মাফলারের ফাঁস লাগানো অবস্থায় তার দেহটি ঝুলছিল। স্থানীয়রা সেই দেহ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশের প্রাথমিক ধারণা ঘটনাটি আত্মহত্যার ঘটনা হতে পারে। রেজাউল বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের এম এ পার্ট-২ এর ছাত্র ছিল। পাশাপাশি বর্ধমান থানায় সে সিভিক ভলেন্টিয়ারের কাজেও যুক্ত ছিল। মৃতের দাদা শেখ আলাউদ্দিন দাবি করে তার ভাইকে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা সঠিক তদন্তের দাবিতে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে।

Leave a Reply