সশস্ত্র সাত মাওবাদীর আত্মসমর্পণ পশ্চিম মেদিনীপুরে

জাহাঙ্গীর বাদশা, মেদিনীপুর  

সশস্ত্র ৭ মাওবাদী আত্মসমর্পন করল মেদিনীপুরে ৷ সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুর পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষের কাছে এই আত্মসমর্পন করেন ৷ এর মধ্যে রয়েছে মাওবাদী কমান্ডার জয়ন্তও ৷ তাঁরা পুলিশের কাছে তুলে দিয়েছেন অত্যাধুনিক ৬ টি বন্দুক সহ কার্তুজও ৷ আত্মসমর্পণ কারীরা মূলস্রোতে ফেরার আহ্বান জানালেন বাকিদেরও ৷

ফের একদল মাওবাদী অস্ত্র নিয়ে আত্মসমর্পন করলেন পুলিশের কাছে ৷ সোমবার সন্ধায় মেদিনীপুর পুলিশ সুপারের অফিসে এই আত্মসমর্পন পর্ব হয় ৷ আত্মসমর্পন কারী মাওবাদীদের মধ্যে ছিলেন সাহেবরাম মুর্মু ওরফে জয়ন্ত ৷ তিনি একে ৪৭ রাইফেল সহ পুলিশের কাছে আত্মসমর্পন করেন ৷ মাওবাদী কমান্ডার জয়ন্তর নামে ৪৮ টি নাশকতার মামলা রয়েছে এই রাজ্যেই ৷ তারমধ্যে সাঁকরাইল ওসি অতীন্দ্রনাথ দত্তকে অপহরন,শিলদা ইএফআর ক্যাম্পে হামলার মতো ঘটনা রয়েছে ৷রয়েছেন জয়ন্তর স্ত্রী মানসী মুর্মু,স্কোয়ার্ড লিডার তিনি ৷  এছাড়াও রয়েছে গুরুচরন সিং ওরফে গুরাই , তাঁর স্ত্রী মালতি সিং ওরফে পারুল ৷ এরা দুজন মাওবাদী নেতা মদন মাহাতো স্কোয়ার্ডের কর্মী ছিলেন ৷ একটি এসএলআর সহ আত্মসমর্পন করেছেন ৷ নানা নাশকতার ১৮ টি মামলা রয়েছে এদের বিরুদ্ধে ৷ এছাড়াও রয়েছে সমীর মাহাত,বৈদ্যনাথ মুর্মু,বনমালি মাহাত ৷ এরাও প্রত্যেকেই অস্ত্র সহ আত্মসমর্পন করেছেন ৷

এদিন এই পর্বের মাঝে জয়ন্ত জানায় “আমরা পরিস্থিতির কারনে ভুল পথে চলে গিয়েছিলাম ৷কিন্তু বর্তমান সরকারের সহযোগীতার কারনে আমরা মূল পথে ফিরতে পেরেছি ৷ বাকিদেরও আহ্বান জানাবো তাঁরাও যেন আমাদের মতো ভুল শুধরে মুলস্রোতে ফিরে আসেন৷ ”  পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষ এদিন বলেন “ এরা প্রত্যেকেই পুনর্বাসন প্যাকেজের আওতায় যাতে আসেন তাঁর জন্য পুলিশী পদ্ধতিগত কাজ করা হবে ৷ বাকি যারা য়ে গিয়েছেন তাঁদেরও মূলস্রোতে ফেরার আহ্বান জানাবো ৷”   ইতিমধ্যেই পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাতে প্রায় দুই শতাধিক মাওবাদী আত্মসমর্পন করেছে ২০১১ থেকে ৷ যারা পুনর্বাসন প্যাকেজ নিয়ে সরকারি চাকরীও করছেন ৷ এবার এই শীর্ষ মাও নেতাদের ফিরে আসা পুলিশের কাছে যেমন সাফল্য, অনেকটা শান্তি নিশ্চিত হল জঙ্গলমহলে ৷ এখনও রয়ে গিয়েছে মদন মাহাত ও মাওনেতা আকাশ ৷