উত্তরবঙ্গে বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখলেন পর্যটন মন্ত্রী

অরুনাংশু মৈত্র,এবি ওয়েব ডেক্স,  ফালাকাটা : জলপাইগুড়ি ও আলিপুরদুয়ার জেলার বন্যা পরবর্তী পরিস্থিতি ও বিভিন্ন এলাকার ক্ষয়ক্ষতির  পরিমাণ সরেজমিনে দেখে নবান্নে রিপোট পাঠানোর দায়িত্ব পড়েছে রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব এর উপর । তারই জন্য দুদিনের এই দুই জেলার বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে জন্য আলিপুরদুয়ার জেলার ফালাকাটা ব্লকের বিভিন্ন বন্যা কবলিত এলকার বন্যা পরবর্তী পরিস্থিতি ও বিভিন্ন এলকার খয়খতির পরিমাণ সরেজমিনে দেখে গেলেন রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব, সঙ্গে ছিলেন ফালাকাটার বিধায়ক অনিল অধিকার,  ফালাকাটার বিডিও স্মৃতা সুব্বl, ফালাকাটা পঞ্চায়েত সমিতির পূর্ত কর্মাদক্ষ সুরেশ লালা প্রমুখ ।

রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেবকে সঙ্গে নিয়ে ফালাকাটার বিধায়ক অনিল অধিকার,  ফালাকাটার বিডিও স্মৃতা সুব্বl, ফালাকাটা পঞ্চায়েত সমিতির পূর্ত কর্মাদক্ষ সুরেশ লালা প্রথমে ফালাকাটা ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তরগতো ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কের উপর বন্যায় ভেসে যাওয়া চরতোরসা নদীর উপর ভেসে যাওয়া কাঠের সেতু, ফালাকাটা কৃষক বাজারে ঢোকার মুখের ভগ্নপ্রায় সেতু, ফালাকাটার প্রাণ মুজনাই নদী পার বাধাই ও সাপটানা নদী দখল হয়ে যাওয়া স্থান পরিদর্শন করে ময়রাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত ৫ মাইল এলকার খয়ারবাড়ি পর্যটন কেন্দ্রে ঢোকার মুখের কংক্রিটের রাস্তা বন্যায় ভেসে যাওয়া স্থান, ও ছোট সালকুমার গ্রাম পঞ্চায়েতের নদীর বাঁধ ভাঙ্গন পরিদর্শন করেন । এবং এই সব এলকার খয়খতির পরিমাণ সরেজমিনে পরিদর্শন করে একটি রিপোট তৈরি করে নিয়ে গেলেন ও নবান্নে পাঠানোর জন্য প্রস্তুতি গ্রহন করেন । এর পর ফালাকাটা সোশাল ফরেষ্ট রেষ্ট হাউজে মধ্যাহ্ন ভোজন করে বৈঠক করেন । সেখানে এর মাঝেই আলোচনা  হয় ফালাকাটার কুঞ্জনগর, খয়ারবাড়ি, জলদাপাড়া নিয়ে একটি পর্যটন সার্কিট গড়ে তোলার প্রস্তাব দেওয়া হয় ফালাকাটার পক্ষ থেকে । তবে সমস্ত বিষয় খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেন মন্ত্রী । এরপর ফালাকাটা থেকে কুমারগ্রামের উদ্যেশ্যে রওনা দেন । কুমারগ্রামে আলিপুরদুয়ার জেলার প্রশাসনিক বৈঠক করার জন্য । সেখানেই আলিপুরদুয়ার জেলার কুমারগ্রামে প্রশাসনিক বৈঠকে জেলার বন্যায় ক্ষয়ক্ষতির  পরিমাণ, জেলার উন্নতি প্রভৃতি সকল বিষয়ে আলোচনা হবার কথা রয়েছে ।